Sign Up

Sign In

Forgot Password

Lost your password? Please enter your email address. You will receive a link and will create a new password via email.

You must login to ask a question.

You must login to add post.

Please briefly explain why you feel this question should be reported.

Please briefly explain why you feel this answer should be reported.

Please briefly explain why you feel this user should be reported.

Lekha Pora Latest Articles

পিল খেলে আপনার কি কি সমস্যাগুলো হতে পারে?

পিল খেলে আপনার কি কি সমস্যাগুলো হতে পারে?

পিলের প্রধান কাজ হচ্ছে ডিম্বাণু নির্গত হওয়াকে বন্ধ করা। এই কাজটি করে থাকে ইস্ট্রোজেন ও প্রোজেস্টেরন হরমোন যুক্ত পিলগুলো। হরমোনাল এসব পিল খাওয়ার ফলে জন্মনিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হয় ঠিকই। তার সাথে পিল খাওয়ার অপকারিতা গুলোও অনেক মহিলার কাছে স্পষ্ট ফুটে উঠে।

জন্ম নিয়ন্ত্রক ঔষধ তথা পিলে দু’ধরনের ট্যাবলেট থাকে। একটি হচ্ছে জন্মনিয়ন্ত্রণ পিল (সাদা বড়ি) অন্যটি হচ্ছে আয়রন বড়ি (খয়েরি বা লাল রঙ্গের হয়ে থাকে)। জন্মনিয়ন্ত্রণ পিলের মূল উপাদান হচ্ছে হরমোন। এই হরমোনাল ঔষধ একাধিকবার খাওয়ার ফলে শরীরে হরমোনের তারতম্য নষ্ট হয়ে অনেক ধরনের ক্ষতি হয়ে থাকে।

প্রত্যেক পিলেরই কিছু না কিছু পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া রয়েছে। প্রত্যেক মহিলা’ই সেই পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া এর মধ্যে যাবেন এমনটা নাও হতে পারে।

পিল খাওয়ার অপকারিতা

পিল খাওয়ার যেমন উপকারিতা রয়েছে তেমনই অপকারিতাও রয়েছে। প্রত্যেক মহিলার এসব অপকারিতার কথা জেনেই পিল খাওয়া উচিত।

পিল খাওয়ার অপকারিতা সমূহ হচ্ছে-

  • ওজন বেড়ে যাওয়া
  • মাথা ব্যথা হওয়া
  • স্রাব বন্ধ না হওয়া
  • যোনিপথের পিচ্ছিলতা কমে যাওয়া
  • বুকের দুধ কমে যাওয়া
  • বিষণ্ণতা হওয়া
  • স্তন স্পর্শ কালে ব্যথা হওয়া
  • বিভিন্ন কাজে হতাশ হওয়া
  • খিটখিটে মেজাজ হয়ে যাওয়া

যারা প্রথমবার পিল ব্যবহার করবেন তাদের যে সকল সমস্যা দেখা দিতে পারে।

  • মাসিক হওয়ার ১৫/২০ দিনে পর ফোটা ফোটা রক্তস্রাব হওয়া
  • বমি বমি ভাব হওয়া বা বমি হওয়া
  • মাথা ধরা
  • মুখে ব্রণ হওয়া
  • ওজন বেড়ে যাওয়া

দীর্ঘদিন পিল ব্যবহার করার ফলে যেসব সমস্যা হয়ে থাকে।

  • হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি থাকলে সেই ঝুঁকি অনেক অংশে বেড়ে যায়। (বিশেষ করে ৩৫ বছরের বেশী মহিলাদের)
  • স্ট্রোক হওয়ার ঝুঁকি থাকলে সেই ঝুঁকি আরও বেড়ে যায়।
  • যাদের শিরার মধ্যে রক্ত জমাট বাঁধার মতো সমস্যা আছে তাদের এই সমস্যা আরও বেড়ে যায়।

উক্ত সমস্যাগুলোও ছাড়া ইমার্জেন্সি পিল বা স্বল্পমেয়াদী জন্মনিয়ন্ত্রণ পিল খাওয়ার নিয়ম অনুযায়ী না খাওয়ার কারণে অনিয়মিত পিরিয়ড হয়ে থাকে। এমনটা হলে পিরিয়ডয়ের তারিখের পরে এক সপ্তাহ অপেক্ষা করতে হবে। তার পরেও যদি পিরিয়ড না হয় তাহলে ডাক্তারের কাছে যেতে হবে।

শেষ কথা

পিল খাওয়ার অপকারিতা অনেক ধরনের রয়েছে। তবে বেশীরভাগ অপকারিতাগুলোই সাময়িক সময়ের জন্য হয়ে থাকে। একটি নির্দিষ্ট সময় পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখানোর পরে আবার সেটি ঠিক হয়ে যায়। যারা দীর্ঘদিন পিল ব্যবহার করে তাদের ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা বেশী। তাই একাধারে অনেকদিন পিল ব্যবহার হতে বিরত থাকুন।

Related Posts

Leave a comment